মঙ্গলবার,

১৮ মে ২০২১

কুল চাষের সহজ পদ্ধতি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৬:২৬, ২৬ ডিসেম্বর ২০২০

কুল চাষের সহজ পদ্ধতি

ছবি : সংগৃহীত

সুস্বাদু ফল কুল। কোনো কোনো অঞ্চলে একে ‘বরই’ বলা হয়। এটি বাংলাদেশের প্রায় সব জায়গায়, সব ধরনের মাটিতেই জন্মে। জেনে নিন কুল চাষের নিয়ম-কানুন।

বীজ এবং কলমের মাধ্যমে বংশবিস্তার করা যায়। কলমের চারার বংশগত গুণাগুণ অক্ষুণ্ন থাকে। বীজ থেকে চারা পেতে বীজকে ভেজা গরম বালির ভেতর দেড়-দুই মাস রেখে দিলে তাড়াতাড়ি গজায়। না হলে ৬-৮ সপ্তাহ সময় লেগে যায়। কলমের চারা পেতে নির্বাচিত স্থানে বীজ বপণ ও চারা তৈরি করে তার উপর বাডিংয়ের মাধ্যমে কলম করে নেওয়া ভালো। বলয়, তালি অথবা টি-বাডিং যেকোনো পদ্ধতিতেই বাডিং করা যায়। তালি, চোখ কলমের চেয়ে সহজ।

বাডিং করার জন্য বীজের চারার রুটস্টক বয়স ৯ মাস থেকে ২ বছর পর্যন্ত হতে পারে। জাত, স্থান ও জলবায়ুভেদে মধ্য-মাঘ থেকে মধ্য-ফাল্গুনে শুরু করে মধ্য-আষাঢ় থেকে মধ্য-ভাদ্র মাস পর্যন্ত বাডিং করা যায়।

মধ্য-বৈশাখ থেকে মধ্য-আষাঢ় উপযুক্ত সময়। এক্ষেত্রে সায়ন সংগ্রহের উদ্দেশে নির্বাচিত জাত এবং রুটস্টক উভয়েরই পুরনো ডালপালা মধ্য-ফাল্গুন থেকে মধ্য-বৈশাখ মাসে ছাঁটাই করে দিতে হয়। এরপর নতুন শাখাকে বাডিংয়ের কাজে লাগাতে হয়।