শনিবার,

১৫ জুন ২০২৪,

৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

শনিবার,

১৫ জুন ২০২৪,

৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Radio Today News

মালয়েশিয়ায় ফাঁসির দণ্ড থেকে রেহাই পেল বাংলাদেশি

রেডিওটুডে রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৬:১৪, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

Google News
মালয়েশিয়ায় ফাঁসির দণ্ড থেকে রেহাই পেল বাংলাদেশি

মাদকের মামলায় মালয়েশিয়ায় আপিল বিভাগের রায়ে ফাঁসির দণ্ড থেকে রেহাই পেয়েছেন এক প্রবাসী বাংলাদেশি। তবে তাকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে। একইসঙ্গে ১০টি বেত্রাঘাতের আদেশ দেওয়া হয়েছে। মালয়েশিয়ার সংবাদ মাধ্যম বারনামা এ তথ্য দিয়েছে।

বাংলাদেশের নাগরিক আশরাফুল আলমসহ (২৮) তিন আসামিকে এই মামলায় দেশটির হাইকোর্ট মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিলেন। বাকি দুজন হলেন- মালয়েশিয়ার কে. দিনাকরন (৪৩) ও ভারতের আরিভাজাগান মুরুগেসানকে (৫০)।

বারনামার প্রতিবেদনে বলা হয়, মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গরের আমপাংয়ের একটি বাড়িতে ৯ কেজি ১৭৯ দশমিক ৩ গ্রাম মেথামফেটামিন বা ক্রিস্টাল মেথ রাখার অভিযোগে ২০১৬ সালের ১৩ আগস্ট তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। ২০১৯ সালে হাইকোর্ট তাদের মেথামফেটামিন পাচারের জন্য দোষী সাব্যস্ত করেন।

মালয়েশিয়ার আইন অনুসারে, কোনো ব্যক্তির কাছে যদি ৩০ গ্রাম বা তার বেশি মেথামফেটামিন থাকে, তবে তাকে পাচারকারী হিসেবে গণ্য করা হয়।

গত বুধবার আদালতের রায় ঘোষণার সময় বিচারক হাদারিয়া বলেন, ওই তিনজনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ত্রুটিপূর্ণ ছিল। মাদক তৈরির মাধ্যমে পাচার হিসেবে অভিযোগ করা হলেও বাস্তবে তা ছিল ওষুধ তৈরির প্রস্তুতিমূলক কাজ।

তাদের বিরুদ্ধে মালয়েশিয়ার ১৯৫২ সালের বিপজ্জনক ড্রাগস অ্যাক্ট সেকশন ৩৯বি (১) ধারায় অভিযোগ ছিল, যা প্রমাণ হলেই মৃত্যুদণ্ড অবধারিত।

তাদের আইনজীবী সাজা কমিয়ে ১০ থেকে ১৫ বছরের কারাদণ্ড চেয়েছিলেন। তবে রাষ্ট্রপক্ষ মাদকের পরিমাণ বিবেচনায় ১৮ থেকে ২০ বছরের মধ্যে কারাদণ্ডের পরামর্শ দিয়েছেন।

মালয়েশিয়ায় মাদক পাচারসহ মাদকের সঙ্গে জড়িতদের জন্য রয়েছে কঠিন শাস্তির বিধান। বিভিন্ন মাদক পাচারের জন্য রয়েছে সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ডের বিধান।

রেডিওটুডে নিউজ/মুনিয়া

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের