বৃহস্পতিবার,

২৫ জুলাই ২০২৪,

১০ শ্রাবণ ১৪৩১

বৃহস্পতিবার,

২৫ জুলাই ২০২৪,

১০ শ্রাবণ ১৪৩১

Radio Today News

শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ভারত

রেডিওটুডে রিপোর্ট

প্রকাশিত: ০৮:০৬, ৩০ জুন ২০২৪

Google News
শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ভারত

১৭৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১৫ ওভারে ৪ উইকেটে ১৪৭ রান করা দক্ষিণ আফ্রিকা আশা জাগিয়েও জিততে পারলো না। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে এবার তাদের স্বপ্ন ভাঙলো। ১৭৭ রানের লক্ষ্যে নেমে ৮ উইকেটে ১৬৯ রান করে প্রোটিয়ারা। ৭ রানে জিতে চ্যাম্পিয়ন হলো ভারত।

সেমিফাইনালে জিতে চোকার্স অপবাদ ঘুচেছে দক্ষিণ আফ্রিকার। কিন্তু জিততে জিততে হেরে যাওয়ার স্বভাব বদলায়নি। ভারতের বিপক্ষে টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে শিরোপা ছোঁয়া দূরত্বে ছিল প্রোটিয়ারা। সেখান থেকে হুট করে 'চোকিং' করে ৭ রানে হেরেছে তারা। ফাইনালে বারবার পা হড়কানো ভারত ১৭ বছর পর টি-২০ বিশ্বকাপের এবং ১১ বছর পর আইসিসির টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

টস জিতে ভারতের অধিনায়ক আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তারা অপরিবর্তিত একাদশ নিয়ে মাঠে নামে। দক্ষিণ আফ্রিকা একই একাদশ নিয়ে খেলে।

বিরাট কোহলি ৭৬ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে ভারতকে এনে দেন ১৭৬ রানের সংগ্রহ। ৭ উইকেট হারিয়ে এই রান করেছে ভারত। তাতে ৪৭ রান করে দারুণ অবদান রাখেন অক্ষর প্যাটেল। 

দ্বিতীয় ওভারে কেশব মহারাজকে টানা দুটি চার মারেন রোহিত শর্মা। তৃতীয় বলে রান নিতে পারেননি। পরের বলে স্কয়ার লেগে আইনরিখ ক্লাসেনকে ক্যাচ দেন ভারতের অধিনায়ক। ৫ বল খেলে ৯ রান করেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২৩ রানে প্রথম উইকেট হারায় ভারত। 

এরপর ক্রিজে এসে প্রথম বলে রানের খাতা খুলতে পারেননি রিশাভ পান্ত। পরের বলে ব্যাটের মাথায় লেগে বল ধরা পড়ে কুইন্টন ডি ককের গ্লাভসে। দুজনই সুইপ করতে গিয়ে বিদায় নিলেন। প্রোটিয়া স্পিনারের জোড়া আঘাতে ২ ওভার শেষে ২৩ রানে ২ উইকেট নেই ভারতের।

পাওয়ার প্লের মধ্যে ৩৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়েছিল ভারত। কোহলি ও অক্ষর ৭২ রানের দারুণ জুটি গড়ে ওই ধাক্কা সামাল দেন। অক্ষর তিন রানের জন্য হাফ সেঞ্চুরি করতে পারেননি। তবে কোহলি ৪৮ বলে পঞ্চাশ ছোঁন।

দ্রুত তিন উইকেট পড়ার পর প্রমোশন পেয়ে পাঁচে ব্যাটিং করতে নামলেন অক্ষর প্যাটেল। দলের স্বীকৃত এই বোলার বিরাট কোহলিকে নিয়ে দলকে স্বস্তি এনে দিয়েছেন। 

দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে কুইন্টন ডি ককের চমৎকার থ্রোতে নন স্ট্রাইক প্রান্তে রানআউট হলেন অক্ষর প্যাটেল। ১০৬ রানে চার উইকেট পড়লো ভারতের। ৩১ বলে ১ চার ও ৪ ছয়ে ৪৭ রানে আউট হন অক্ষর। বিরাট কোহলিকে নিয়ে ৫৪ বলে ৭২ রানের জুটি গড়েন তিনি। এ জুটিতেই ভর করে প্রোটিয়াদের ১৭৭ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় টিম ইন্ডিয়া । 

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেই হোঁচট খায় প্রোটিয়ারা। যশপ্রীত বুমরা দ্বিতীয় ওভারেই বোল্ড করেন রিজা হেনড্রিকসকে। দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে উইকেট হারান তিনি। ৫ বলে ৪ রান করেন হেনড্রিকস। ৭ রানে প্রথম উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা।

পরের ওভারে আর্শদীপ সিংয়ের বলে রিশাভ পান্তের দারুণ ক্যাচে মাঠ ছাড়েন এইডেন মারক্রাম। ১২ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ৫ বলে ৪ রান করেন প্রোটিয়া অধিনায়ক।

কুইন্টন ডি কক ও ট্রিস্টান স্টাবসের জুটিতে লড়াইয়ে ফিরে দক্ষিণ আফ্রিকা। দুজনে মিলে ৩৮ বলে ৫৮ রান তুলে বিচ্ছিন্ন হন। স্টাবসকে নবম ওভারে বোল্ড করেন অক্ষর প্যাটেল। ২১ বলে ৩ চার ও ১ ছয়ে ৩১ রান করেন দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটার। ৭০ রানে তিন উইকেট পড়ে প্রোটিয়াদের।

১৩তম ওভারের প্রথম বলে সিঙ্গেল নিয়ে জ্যাক ক্যালিসকে (২৩৮ রান, ২০০৯ সালে) ছাড়িয়ে এক বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ রান করেন কুইন্টন ডি কক। পরের বলে চার মারেন। একই শট খেলতে গিয়ে কুলদীপ যাদবের ক্যাচ হন তিনি। ৩১ বলে ৩৯ রান করে আর্শদীপ সিংয়ের কাছে উইকেট হারান ডি কক।

১৭ তম ওভারে বল হাতে ব্রেকথ্রু আনেন হার্দিক পান্ডিয়া। বিপজ্জনক আইনরিখ ক্লাসেনকে ফেরালেন ভারতীয় পেসার। লক্ষ্য থেকে ২৬ রান দূরে থাকতে আউট হন ক্লাসেন। ক্লাসেন ২৩ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন। ১৬ ওভারে ৪ উইকেটে ১৫১ রান দক্ষিণ আফ্রিকার।

শেষ তিন ওভারে ২২ রান দরকার ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার। যশপ্রীত বুমরা বল হাতে নিয়ে দারুণ বোলিংয়ে মার্কো ইয়ানসেনকে বোল্ড করে ভারতকে লড়াইয়ে ফেরান।

সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে ধসিয়ে দেওয়া কুলদীপ ও অক্ষর ফাইনালে ফ্লপ। দুজনে চার ওভারে যথাক্রমে ৪৫ ও ৪৯ রান দিয়েছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকা একাদশ: কুইন্টন ডি কক, রিজা হেনড্রিকস, এইডেন মারক্রাম (অধিনায়ক), আইনরিখ ক্লাসেন, ডেভিড মিলার, ট্রিস্টান স্টাবস, মার্কো ইয়ানসেন, কেশব মহারাজ, কাগিসো রাবাদা, আনরিখ নর্কিয়ে, তাবরাইজ শামসি।

ভারত একাদশ: রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), বিরাট কোহলি, রিশাভ পান্ত, সূর্যকুমার যাদব, শিবম দুবে, হার্দিক পান্ডিয়া, রবীন্দ্র জাদেজা, অক্ষর প্যাটেল, কুলদীপ যাদব, আর্শদীপ সিং, যশপ্রীত বুমরা।

রেডিওটুডে নিউজ/আনাম

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের