মঙ্গলবার,

১৮ মে ২০২১

ফেসবুক নয়, বিশ্বের সর্বোচ্চ ডাউনলোড করা অ্যাপ এখন টিকটক

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৪:৫২, ১২ ডিসেম্বর ২০২০

আপডেট: ১০:১৯, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১

ফেসবুক নয়, বিশ্বের সর্বোচ্চ ডাউনলোড করা অ্যাপ এখন টিকটক

প্রতীকী ছবি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুককে পেছনে ফেলে ২০২০ সালে সবচেয়ে বেশি ডাউনলোড করা হয়েছে স্বল্প দৈর্ঘ্যের ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ টিকটক। এখনো পর্যন্ত গুগল প্লে স্টোর থেকে এই অ্যাপটিকে ডাউনলোড ও ইনস্টল করেছে ৬০ মিলিয়নের বেশি মানুষ । মাত্র ২ বছরের মধ্যেই এটি ফেসবুককে পেছনে ফেলল। সম্প্রতি মোবাইল অ্যাপ অ্যানালিটিক্স ফার্মের (অ্যাপ অ্যানি) প্রকাশিত রিপোর্টে এ তথ্য জানানো হয়।

টিকটক শুধু ফেসবুককে পেছনে ফেলেছে তা নয়, জনপ্রিয়তার নিরিখে এর মালিকানাধীন ফটো শেয়ারিং অ্যাপ, ইনস্টাগ্রামকেও হারিয়ে দিয়েছে। টিকটক এখন সারাবিশ্বে গুগল প্লে স্টোর থেকে সর্বাধিক ডাউনলোড করা অ্যাপ।

সবচেয়ে বেশি ডাউনলোডেড অ্যাপ হিসেবে এতদিন প্রথম জায়গা ধরে রেখেছিল ফেসবুক। কিন্তু চলতি বছরে টিকটকের কাছে ধাক্কা খেয়ে সবথেকে বেশি পরিমাণ ডাউনলোডেড অ্যাপ হিসেবে দ্বিতীয় স্থানে চলে এলো ফেসবুক। আর তার ঠিক পরেই অর্থাৎ তিন নম্বর স্থানে রয়েছে হোয়াসঅ্যাপ।

অ্যাপ অ্যানি আরও জানায়, ২০২১ সালে প্রতি মাসে ১ বিলিয়ন অ্যাক্টিভ ইউজার হয়ে যাবে এই শর্ট ভিডিয়ো শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মের। এই মাসিক অ্যাক্টিভ ইউজারের বিচারে ২০২০ সালে টিকটকের স্থান আট নম্বরে। এদিকে আবার চলতি বছরে কোনও অ্যাপের ক্ষেত্রে কনজিউমারের খরচের নিরিখে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে টিকটক, প্রথম স্থানে থান্ডার।

'২০২০ সালে সারা বছর ধরেই দাপট দেখিয়েছে টিকটক। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের গ্রাহকেরা এই অ্যাপ বিপুল পরিমাণে ডাউনলোড করেছেন। এটাকে এখন শুধুমাত্রই ভিডিয়ো শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখলে হবে না। কারণ সোশ্যাল এবং স্ট্রিমিং সার্ভিসের সবকিছু মিলিয়ে টিকটক দিনে-দিনে বিশ্ববাসীর অন্যতম সেরা পছন্দ হয়ে উঠেছে। আর এই ভাবে চলতে থাকলে ২০২১ সালের মধ্যেই নেটফ্লিক্সের মতো বড়সড় স্ট্রিমিং প্লেয়ারকেও টেক্কা দিয়ে মাসে ১ বিলিয়ন অ্যাক্টিভ ইউজারেরা ক্লাবে ঢুকে পড়বে টিকটক।

অন্য দিকে আবার করোনার কারণে ভিডিয়ো কমিউনিকেশনের দিক থেকে অন্যতম সেরা প্ল্যাটফর্ম হয়ে উঠেছে জুম। চলতি বছরে ডাউনলোডের নিরিখে উল্লেখযোগ্যহারে উপরের দিকে উঠে এসেছে জুম। ২০২০ সালে ২১৯ ধাপ এগিয়ে এসে মোস্ট ডাউনলোডেড অ্যাপের চতুর্থ স্থানে রয়েছে এটা। অন্য দিকে আবার গুগল মিটের ডাউনলোডেও লক্ষ্য করা গিয়েছে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন। কনজিউমার স্পেন্ডিংয়ে আবার পঞ্চম স্থানে চলে এসেছে ডিসনেই প্লাস।

সম্পর্কিত বিষয়: