শুক্রবার,

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২,

১৫ আশ্বিন ১৪২৯

শুক্রবার,

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২,

১৫ আশ্বিন ১৪২৯

Radio Today News

কোভিড পরবর্তী তে কিছু মনে রাখা সম্ভব হচ্ছে না? 

রেডিওটুডে রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৯:৫৪, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

কোভিড পরবর্তী তে কিছু মনে রাখা সম্ভব হচ্ছে না? 

ভুলে যাওয়া মানুষদের নিয়ে ব্যঙ্গবিদ্রূপ চলে হরহামেশা। আজ এই সমস্যাটাকে মজার মনে হলেও আসলে তা নয়। বরং কখনও কখনও স্মৃতিভ্রংশের মত সমস্যাও হতে পারে।  এই সমস্যাটিকে বিজ্ঞানের ভাষায় 'ডিমেনশিয়া' বলে। চিকিৎসকদের মতে, গুপ্তঘাতকের মত মূলত এই রোগ আসে, শুধু আমাদের দেশেই নয়, বিশ্বজুড়ে বাড়ছে এই রোগের প্রকোপ।

তবে স্বস্তির কথা হচ্ছে খাদ্যাভাসে বদল আনলে কিছু টা হলেও ঠেকিয়ে রাখা যায় এই রোগ। গবেষণায় দেখা গেছে, এক্ষেত্রে মাশরুম ভীষণ উপকারী। বায়োঅ্যাক্টিভ যৌগ রয়েছে মাশরুমের ভিতর। যা মস্তিস্কে দারুণভাবে স্নায়ুর বৃদ্ধি বাড়ায় এবং নিউরোটক্সিক স্টিমিউলি কমাতে সাহায্য করে। ফলে ডিমেনশিয়া বা অ্যালঝাইমার্সের মত রোগ থেকে মাশরুম অনায়াসেই রক্ষা করতে পারে অনেকাংশে। তাই স্মৃতিশক্তি বাড়াতে মাশরুম খাওয়ার অভ্যাস করা যেতেই পারে। 

এক্ষেত্রে কিভাবে কাজ করে মাশরুমঃ
১) মস্তিষ্কে নতুন স্নায়ুকোষের বিকাশ ঘটায় মাশরুমে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট। মস্তিষ্ককে প্রদাহ থেকে রক্ষা করে এবং টক্সিন পদার্থের ক্ষরণ আটকাতে সাহায্য করে। 

২) মাশরুমে থাকা বিটা গ্লুকান নামক একধরনের দ্রবণীয় ফাইবার কোলেস্টেরলের সমস্যা দূর করে। এছাড়া ভরপুর মাত্রার ফাইবার থাকে মাশরুমে। রাইবোফ্লাভিন, নিয়াসিন এবং প্যান্টোথেনিক অ্যাসিড পাওয়া যায় মাশরুমে। লোহিত রক্তকণিকার স্বাস্থ্য রক্ষা করে এই রাইবোফ্লাভিন। অন্যদিকে পাচনতন্ত্র ভালো রাখে নিয়াসিন আর স্নায়ুতন্ত্রের যত্ন নেয় প্যান্টোথেনিক।

তাই কোভিড পরবর্তী জীবনাচরনে বা দৈনন্দিন জীবনযাপনে শরীর মন ও মস্তিষ্ক সুস্থ রাখতে মাশরুমের ভূমিকা অনেক। তাই আমরা প্রতিনিয়ত মাশরুম খাওয়ার অভ্যাস করতে পারি।

এস আর

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের