শনিবার,

১৫ জুন ২০২৪,

৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

শনিবার,

১৫ জুন ২০২৪,

৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Radio Today News

`সরকার মানুষকে রক্তশূন্য করে গায়ে গয়না পরিয়ে দিচ্ছে`

রেডিওটুডে ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩:২৪, ৬ অক্টোবর ২০২৩

আপডেট: ২৩:২৬, ৬ অক্টোবর ২০২৩

Google News
`সরকার মানুষকে রক্তশূন্য করে গায়ে গয়না পরিয়ে দিচ্ছে`

জিএম কাদের

রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সমালোচনা করে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি বলেছেন, "সরকার যেভাবে মেগা প্রজেক্ট করছেন, যেভাবে প্রকল্প করছেন, যেভাবে দুর্নীতি করছেন, তাতে মনে হচ্ছে তারা বাংলাদেশের মানুষকে রক্তশূণ্য করে গায়ে গহনা পরিয়ে দিচ্ছেন।"

নীলফামারী কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে আজ শুক্রবার (৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় জেলা জাতীয় পাটির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে তিনি এসব বলেন।

জি এম কাদের বলেন, "বর্তমান সরকার এই প্রজেক্ট করার পর আমার মনে হয়েছে শুধু রক্তশূন্য করছেন না, আপনার লিভার, আপনার কিডনি এগুলো কেটে নিয়ে তারা বিক্রি করছেন। তার মাধ্যমে এমন একটি দেহ থাকছে আপনার, যার ওপরে গয়নাকাটি পরানো হচ্ছে। কিন্তু কিডনি আপনার নাই, আপনার লিভার নাই, ভেতর থেকে আপনার সবকিছু বের করে নেওয়া হচ্ছে, এই ধরণের একটি দেহ আমদের বাংলাদেশে অবশিষ্ট থাকছে। এর কারণ হলো দেশে কোন গণতন্ত্র নেই, সরকার কোন গণতন্ত্র দেয় নাই।"

তিনি বলেন, "রূপপুর পাওয়ার প্লান্ট পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু করা হচ্ছে। এটা আমাদের মধ্যে একটা বড় ধরনের ঝুঁকি। এটা আমাদের জন্য বিপৎজনক একটা প্লান্ট, বিপৎজনক জিনিষ যা আপনাদের জানা দরকার। আমি মনে করি এটা আপনাদের সকলকে জানিয়ে দেওয়া আমার কর্তব্য। রূপপুর পাওয়ার প্লান্ট করা হয়েছিল প্রথমে সাড়ে ১১ হাজার মিলিয়ন ডলার এস্টিমেট দিয়ে। অর্থাৎ এক লক্ষ ১৩ হাজার কোটি টাকায় করা হয়েছে। এটার ক্যাপাসেটি হলো ২৪০০ মেগাওয়াট। কিন্তু ভারতে ২০০০ মেগাওয়াট করা হয়েছে ৫ মিলিয়ন ডলার দিয়ে। তার চেয়ে আড়াই তিনগুণ বেশি দিয়ে আমরা নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্ট করছি, এই নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্লান্টের সমস্যা হলো এটার যদি একসিডেন্ট হয়, এটা ভয়ঙ্কর একসিডেন্ট। আমাদের মতো জনবহুল দেশে অত্যন্ত বিপৎজনক। যেখানে তিনটি একসিডেন্ট হয়েছে, একটা হলো চেরনোবিল রাশিয়াতে ১৯৮৬ সালে। ওখানে এখন পর্যন্ত ৫০ মাইল এলাকাজুড়ে কোন বসতি স্থাপন করতে দেওয়া হয়না। আমদের দেশে যদি এমন একটি একসিডেন্ট হয়, ৫০ বর্গ কিলোমিটার যদি কোন বসতি স্থাপন করতে দেওয়া না হয়, গরু-ছাগল কোন কিছুই ওখানে বাঁচে না।"

তিনি আরও বলেন, "সেই ধরণের প্রজেক্ট আমরা তৈরি করেছি, বলছি আণবিক শক্তি। আণবিক শক্তি নয়, আণবিক বিপদ আমরা ঘরে নিয়েছি এবং বিপদজনক একটি ঝুঁকি নিয়েছি। আরও একটি নাকি করা হচ্ছে বরিশালে, যদি খোদা না করুক একটা একসিডেন্ট (দুর্ঘটনা) হয় সেটা হতেই পারে। বর্তমান ইউরোপ থেকে বিভিন্ন উন্নত দেশ বলছে আমরা আর বিদ্যুতের জন্য পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র করব না সেখানে আমরা সস্তার নাম নিয়ে এটা করছি। হচ্ছে তিনগুণ দামে, এটা সস্তা হবে না। অত্যন্ত বিপদজনক আমরা সবাই, আমরা বিষাক্ত একটা প্রযুক্তি নিয়ে এসেছি এবং আমাদের হাতে কোনো শক্তি নাই।"

তিনি আরও বলেন, "এটার সবগুলো ইঞ্জনিয়ার হলো রাশিয়ান, কিছু ভারতীয় কনসালটেন্ট কাজ করে। এটা অপারেট করবে রাশিয়ানরা। এখানে বাংলাদেশের কোনো কন্ট্রোল থাকবে না। আমি এর আগেও একার বলেছিলাম সরকার যেভাবে মেগা প্রজক্ট করছেন, যেভাবে প্রকল্প করছেন, যেভাবে দুর্নীতি করছেন, তাতে মনে হচ্ছে তারা বাংলাদেশের মানুষকে রক্তশূণ্য করে গায়ে গহনা পরিয়ে দিচ্ছেন।"

রেডিওটুডে নিউজ/এসবি

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের