রোববার,

১০ ডিসেম্বর ২০২৩,

২৫ অগ্রাহায়ণ ১৪৩০

রোববার,

১০ ডিসেম্বর ২০২৩,

২৫ অগ্রাহায়ণ ১৪৩০

Radio Today News

স্কুলছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর ঘটনায় উত্তাল চুয়াডাঙ্গা

ফাইজার চৌধুরী, চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫:১৮, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

আপডেট: ১৮:৪৯, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

Google News
স্কুলছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর ঘটনায় উত্তাল চুয়াডাঙ্গা

চুয়াডাঙ্গায় স্কুলছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর ঘটনায় উত্তাল পুরো শহর

চুয়াডাঙ্গায় ১০ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর ঘটনায় চুয়াডাঙ্গা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এর ইংরেজি সহকারী শিক্ষক শাকিল আরাফাত (৩৫) এর বহিষ্কার ও শাস্তির দাবিতে অবস্থান কর্মসূচি ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ টায় বিদ্যালয় প্রাঙ্গন থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আবার বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিদ্যালয়ে এসে শেষ হয়।

এসময় বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা শিক্ষকের বহিষ্কার ও শাস্তির দাবি নিয়ে স্লোগান দিতে থাকে এবং শিক্ষকের অপকর্ম ফাঁস করতে থাকে।

এ ঘটনায় স্কুল ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলার দায়ের করেছেন। সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকালে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার শেখপাড়ার ভাড়াবাসা থেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

গ্রেফতারকৃত শাকিল আরাফাত ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার ফরাশপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ইংরেজি সহকারী শিক্ষক শাকিল আরাফাতের কাছে তার ভাড়া বাসায় প্রাইভেট পড়তো একই স্কুলের ১০ম শ্রেণীর এক ছাত্রী। সকালে প্রাইভেট পড়ে আসার সময় অভিযুক্ত শিক্ষক ভুক্তভোগী ছাত্রীকে ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীদের কিছু খাতা দেখে দেওয়ার জন্য সকাল সাড়ে ৬ টার সময় আসতে বলেন। ঐ ছাত্রী শিক্ষকের কথা মত সকালে তার বাসায় যায়। সকালে বাসায় কেউ না থাকার সুযোগে ছাত্রীকে তার বেড রুমে নিয়ে যেয়ে শ্লীলতহানির চেষ্টা করেন। এক পর্যায়ে ভুক্তভোগী ছাত্রী প্রতিরোধে সৃষ্টি করে শিক্ষক কে ধাক্কা দিয়ে ফেলে ঘর থেকে বেরিয়ে পালিয়ে আসে। পরে ভুক্তভোগী ছাত্রীর বাবা চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ অভিযুক্ত শিক্ষক শাকিল আরাফাতকে গ্রেফতার করেন।

ঘটনা তদন্তে চুয়াডাঙ্গা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শারমিন আক্তার কে প্রধান করে ৪ সদস্য বিশিষ্ঠ তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহাব্বুর রহমান জানান, ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। সকালে তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক কিসিঞ্জার চাকমা বলেন, ইতিমধ্যে আইনি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। আমরা বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরত্ব দিয়ে দেখছি। এর সঠিক বিচার নিশ্চিত করতে সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রেডিওটুডে নিউজ/এসবি

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের