মঙ্গলবার,

১৮ মে ২০২১

কোরআন শরীফ ব্যবহারের অনুপযুক্ত হলে যা করবেন

প্রকাশিত: ১০:৪৪, ২ ডিসেম্বর ২০২০

আপডেট: ১০:৫৬, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১

কোরআন শরীফ ব্যবহারের অনুপযুক্ত হলে যা করবেন

প্রতীকী ছবি

দীর্ঘদিন ব্যবহারের কারণে পাতাগুলো নষ্ট হয়ে যায় এবং পড়ার যোগ্য থাকে না। কী করবেন এ নিয়ে দ্বিধায় ভোগেন অনেকেই।

এ নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। যদি কোরাআন শরীফটি ব্যবহারের অনুপযুক্ত এমন হয় তাহলে করণীয় হচ্ছে একটা ভালো জায়গা বেছে মাটিতে পুঁতে ফেলা।

যদি এটি করতে না পারেন তাহলে পানিতেও ফেলে দেওয়া যায়। যদি আপনি মনে করেন যে, মাটিতে রাখলে কেউ হয়তো উঠিয়ে ফেলতে পারে অথবা কোনোভাবে কোরআনের অবমাননা হতে পারে, সেক্ষেত্রে পুড়ে ফেলে আপনি মাটিতে পুঁতে ফেলতে পারেন, এটি জায়েজ রয়েছে।

ওসমান ইবনে আফফান (রা.) যখন কোরআনে কারিমের মুসহাবগুলো একত্র করলেন তখন যেগুলো অতিরিক্ত রয়ে গেল, দেখলেন যে, এগুলো আর কাজে লাগবে না, তখন সবগুলোকে একসঙ্গে করে পুড়ে ফেললেন। তারপর মাটিতে পুঁতে দিলেন। ওসমানের (রা.) আমল থেকে এটি আমরা জানতে পেরেছি, সুতরাং এটি করা জায়েজ রয়েছে।

কিন্তু কোরআনে কারিমের যাতে কোনোভাবে অবমাননা না হয়, এটা ডাস্টবিনে অথবা রাস্তায় ফেলা যাবে না অথবা এমন জায়গায় নিক্ষেপ করা যাবে না যেখানে কোরআনে কারিমের অবমাননা হতে পারে। কোরআন শরিফ যদি নষ্টও হয়ে যায় বা যেই পর্যায়েই থাক না কেন কোরআন যেখানে-সেখানে ফেলা যাবে না।