মঙ্গলবার,

১৮ জুন ২০২৪,

৫ আষাঢ় ১৪৩১

মঙ্গলবার,

১৮ জুন ২০২৪,

৫ আষাঢ় ১৪৩১

Radio Today News

রংপুরে আইজি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন

`আগামী সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে জঙ্গীবাদের সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই`

সাজ্জাদ হোসেন বাপ্পী, রংপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫:৪৩, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

আপডেট: ১৬:০৪, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩

Google News
`আগামী সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে জঙ্গীবাদের সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই`

আইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন (ফাইল ছবি)

পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, আগমী সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে জঙ্গীবাদের সুনিদৃষ্ট কোন তথ্য নেই। এই নিয়ে আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কাজ করে যাচ্ছে। তারা যেখানে সংঘটিত হবার চেষ্টা করছে তার আগেই আমার তাদের প্রতিহত করছি। যে কোন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় পুলিশ বাহিনী সবসময় প্রস্তত আছে। নির্বাচনের সময় পুলিশ বাহিনী নির্বাচন কমিশনের আদেশ মেনে দায়িত্ব পালন করবে। তারা আমাদেরকে যে ভাবে বলবে সেই ভাবে কাজ করে যাবো। পুলিশ আইশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে সকলের সহযোগীতা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে।

সোমবার দুপুরে রংপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের পঞ্চম প্রতিষ্টা বার্ষিকী উপলক্ষে সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন।

এর আগে সুধি সমাবেশে তিনি বলেন, রংপুরের মানুষ শান্তিপ্রিয় তারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আমি নীলফামারীর পুলিশ সুপার ছিলাম এই এলাকার মানুষের সাথে সম্পর্ক রয়ে গেছে। আইন শৃঙ্গখলা বজায়ে তারা আন্তরিক। রংপুরের আইনশৃঙ্গখলা সবসময় ভালো থাকে। সবচেয়ে ভালো অফিসারদের রংপুরে দিয়ে থাকি। যারা রংপুরের মানুষের আবেগ বুঝতে পারে আমরা তাদের এখানে দিয়ে থাকি।

আইজি বলেন,এই দেশে জঙ্গীবাদের হুলিখেলা শুরু হয়েছিল ৬৩ জেলায়। প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাসবাদ জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষনা করেছে। জঙ্গিরা সমবেত হওয়ার আগেই পুলিশ এগিয়ে থাকে। দেশে আইনশৃঙখলা অবস্থা স্থিতীশিল অবস্থা বিরাজ করছে। আগে দেশে মাথাপিছু আয় ছিল ৫০০ ডলার এখন ৩০০০ ডলার। আমরা আর্থিভাবে অনেক এগিয়েছি। দেশে উন্নয়ন কার্যক্রমের জোয়ার শুরু হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, টেকসই নিরাপত্তা থাকলে টেকসই শান্তি থাকবে আর টেকসই শান্তি থাকলে টেকসই উন্নয়ন হবে। আমাদের প্রত্যাশা রংপুরবাসীর কাছে একটু বেশি। তারা বিভিন্ন কাজে আমাদের সহায়তা করে। তাদের সহায়তা ছাড়া একক প্রচেষ্টায় আইন শৃঙখলা শতিতীশীল রাখা সম্ভব না।

আইজি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, এই নগরীর প্রধান সমস্যা হলো মাদক জুয়া ও যানজট। নিয়মিত কাজ করলে এগুলো সমস্যার উন্নতি হবে। মাদকের জন্য আভিযানিক কার্যক্রমের পাশাপাশি সন্তানরা কোথায় যাচ্ছে কার সাথে মিশছে সেটা নজর রাখতে হবে। অভিভাবকদের সচেতনতা বাড়ানো ও প্রত্যেক নাগরিককে নিজের জায়গা থেকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। আগামী দিনে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে স্মার্ট পুলিশিং বিনির্মানে সবার সহযোগিতা চান।

রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ মনিরুজ্জামানের সভাপতিত্বে সুধি সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন- রংপুর বিভাগীয় কমিশনার হাবিবুর রহমান, রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি আবদুল বাতেন, রংপুর পুলিশ ট্রেনিং সেন্টার কমান্ডেন্ট বাসুদেব বনিক, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডঃ মোঃ হাসিবুর রশিদ।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান,  রংপুর জেলা পুলিশ সুপার ফেরদৌস আলী চৌধুরী, র‌্যাব-১৩ এর কমান্ডার আরাফাত ইসলাম, মহানগর আওয়ামী লীগের আহবায়ক ডা. দেলোয়ার হোসেন, মহানগর কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু।

এর আগে সকালে আইজি বঙ্গবন্ধুর মূরালে পুস্পমাল্য অর্পণ করেন। এর পর রংপুর নগরীর সুরভি উদ্যানের সামনে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে দিনব্যাপি অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। এরপর সেখান থেকে একটি বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়ে নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের