বৃহস্পতিবার,

২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪,

১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

বৃহস্পতিবার,

২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪,

১৭ ফাল্গুন ১৪৩০

Radio Today News

নওয়াজ-জারদারি বৈঠক, সরকার গঠনে পিছিয়ে পড়ছে কারাবন্দি ইমরান

রেডিওটুডে ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৪:১৫, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

Google News
নওয়াজ-জারদারি বৈঠক, সরকার গঠনে পিছিয়ে পড়ছে কারাবন্দি ইমরান

জল ঘোলা হয়ে উঠেছে পাকিস্তানের নির্বাচন পরবর্তী রাজনীতিতে।ভোটগ্রহণের ৪৮ ঘণ্টা পার হওয়ার পর এখনও কোন দল বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করবে তা পরিস্কার হয়নি। ফলে গণমাধ্যমে জটিল হিসাব নিকাষের শোরগোল আর জোট গঠন নিয়ে জোর আলোচনা চলছে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও পাকিস্তানের গণমাধ্যমের খবরে জানা গেছে, ২৬৬টি আসনের মধ্যে ২৫০টি আসনের ফলাফল ঘোষণা করেছে দেশটির নির্বঅচন কমিশন। এর মধ্যেসবচেয়ে বেশি ৯৯ আসনে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। তাদের মধ্যে বেশির ভাগই পিটিআই, অর্থাৎ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও তারকা ক্রিকেটার ইমরান খান সমর্থিত। ৭১ আসন নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দল। বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির দল পিপিপি রয়েছে তৃতীয় অবস্থানে। তার দল পেয়েছে ৫৩ আসন। এছাড়া এমকিউএম ১৭ আসনে এবং অন্যান্য দল ১০টি আসনে জয়ী হয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে ইমরান খানের দল পিটিআইয়ের প্রধান গহর আলী খান জানিয়েছেন , পিএমএল-এন ও পিপিপির সঙ্গে আমরা (পিটিআই) যোগাযোগ রাখছি না। তবে বসে নেই নওয়াজ শরীফ। দল হিসেবে এককভাবে তিনিই এখনও পর্যন্ত সংগরিষ্ঠ দলের নেতা। তার দল মুসলিম লীগ একক রাজনৈতিক দল হিসেবে সর্বোচ্চ ৭১ আসানে জয়লাভ করেছে। সেই মোতাবেক শুক্রবার (ফেব্রুয়ারি) রাতে, তিনি তৃতীয় অবস্থানে থাকা পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) সঙ্গে শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতেই বৈঠক করেছেন তিনি। বৈঠকে আর কারা উপস্থিত ছিলেন বা কী আলোচনা হয়েছে, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে সরকার গঠনের প্রক্রিয়া নিয়েই আলোচনা হয়েছে বলে ধারণা করা হয়। তবে পিপিপির সূত্রের বরাত দিয়ে পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যম দ্য ডন বলেছে, পিপিপির কো-চেয়ারর‌্যান আসিফ আলী জারদারির সঙ্গে বৈঠক করেছেন নওয়াজ শরিফ। এর আগে ২০২২ সালে অনাস্থা ভোটের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ক্ষমতা থেকে সরাতে পিপিপি ও পিএমএল-এন একসঙ্গে জোট করেছিল। সেই মোতাবেক কি এবারও তারা জোটবদ্ধ সরকার গঠন করছে? এমন প্রশ্ন দেশটির জনমনে বলে জানিয়েছে দ্য ডন।

দ্য ডন আরও জানিয়েছে, ৪৫ মিনিটের ওই বৈঠকে তারা কেন্দ্রে ও পাঞ্জাবে জোট সরকার গঠনে সম্মত হয়েছেন। তবে, জোট গঠনে শর্ত জুড়ে দিয়েছে পিপিপি। পিপিপির শীর্ষ মুখপাত্র খুরশিদ শাহ বলেছেন, নওয়াজ শরীফ প্রধানমন্ত্রী হতে চান। এজন্যই জোট গঠনের তৎপরতা চালাচ্ছেন। জোট সরকারের অংশ হতে আমাদের আপত্তি নেই। কিন্তু আমরা তাকে (নওয়াজ) প্রধানমন্ত্রীর পদে দেখতে চাই না। আমরা চাই, পাকিস্তানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হবেন আমাদের দলের চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি। কিন্তু হিসাবের খাতায় এই জোট সরকার গঠন পারবে কিনা তা নিয়ে এখনও সন্দেহ রয়েছে। দেখা যায়, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত ২৫০ আসনের মধ্যে নওয়াজের মুসলিম লীগ পেয়েছে ৭১ আসন, আর পিপিপি পেয়ে ৫৩ আসন। সে হিসেবে, তাদের মোট আসন ১২৪। ফল ঘোষণা করা বাকী আসন ১৬। আর নওয়াজ ও বিলাওয়ালের জোটের সরকার গঠনের জন্য দরকার ১৩৪। তাহলে ১৬ আসনের মধ্যে তাদের দরকার মাদ্র ১০টি আসন।

নির্বাচন কমিশনের বরাতে পাকিস্তানি গণমাধ্যমের খবর, এই ১৬ আসনের বেশিরভাগে এগিয়ে রয়েছেন ইমরান সমর্থিত প্রার্থীরা। এমন অবস্থায় আরো কিছু ছোট দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের উপর নির্ভর করতে হবে মুসলিম লীগ ও পিপলস পার্টিকে।

রেডিওটুডে/এমএমএইচ

সর্বশেষ

সর্বাধিক সবার কাছের